পিরোজপুর প্রতিনিধি:

লা শহরের বাজার রোডে মৃত এক ব্যবসায়ীর সহায়-সম্পত্তি গ্রাস করার চেষ্টায় তারঁ স্ত্রীকে প্রতিপক্ষের মারপিট নির্যাতন এবং হয়রানীর অভিযোগ এনে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন এক বিধাব গৃহিনী। বুধধবার সকালে পিরোজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠকালে ইতি সাহা স্বামীর মৃত্যুর পর তারঁ উপর চালানো নিযার্তনের বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেন,আজ আমি অত্যান্ত নিরুপায় হয়ে আপনাদের সামনে উপস্থিত হয়েছি। বিয়ের পর আমি শহরের রাজারহাটে স্বামী বিপ্লব কুমার সাহার সাথে বসবাস করে আসছিলাম। বাজার রোডে আমার স্বামীর “সোমা প্রসাধনী” নামে একটি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান আছে। ঐ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামে রূপালী ব্যাংক লিঃ হুলারহাট শাখা থেকে আমাকে গ্রান্টার করে আমার স্বামী ৬ লক্ষ টাকা লোন নেন। কিন্তু তিনি বিগত ২০২০ইং সালে ১৯ অক্টোবর তিনি আকস্মিকভাবে মৃতু বরণ করেন।
এরপর পরস্পর যোগসাযোসে আমার ননদপুত্র অনির্বান সাহা, ননদের স্বামী অসীম সাহা,ননদ পলাসী সাহা, খালা শ^াশুড়ি মিতা সাহা এবং তাদের পক্ষের লোকজন আমার স্বামীর রেখে যাওয়া সহায়-সম্পত্তি গ্রাস করার চেষ্টায় আমাকে নির্যাতন হয়রানি করে আসছে। তারা ঘটনার দিন ২২ জুলাই দুপুরের দিকে বেচাকেন করা কালীন সময় দোকানে হামলা চালায়। এ সময় আমাকে মারপিট নির্যাতন করে দোকানের ক্যাশ থেকে ২৫ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি নিতে থাকলে তাঁরা ঐ দিন দুপুর দেড়টার দিকে রাজারহাটে আমার বাসায় তালা ভেঙ্গে ভাংচূর ও লুটপাট করে প্রায় অর্ধলক্ষাধীক টাকার ক্ষতি সাধন করে। এ ব্যাপারে আমি পিরোজপুর সদর থানায় লিখিত অভিযোগ করলেও অজ্ঞাত কারনে তা নিয়মিত মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়নি। পরে পিরোজপুর সিনিয়র ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করলে বিজ্ঞ আদালত অভিযোগ আমলে নিয়ে আসামীদের বিরুদ্ধে সমন জারি করেন। এর আগে বিবাদীরা জোর করে সম্পত্তি দখল করার চেষ্টায় বিভিন্ন সময় গালাগাল, হুমকি- ধমকি দিতে থাকলে আমি সদর থানায় ১১জুলাই/২০২১ইং তারিখে সাধারন ডায়েরী করি। মামলার আসামীরা আমার দোকানে জোর করে তালাবদ্ধ করে রেখেছে। তারা দলে ভারী এবং স্থানীয় লোকজন হওয়ায় আমি এখন আর নিরপদ নই। আমার উপর যে কোন সময় আসামীরা হামলা চালাতে পারে বলে আতঙ্কের মধ্যে আছি। এমনকি সর্বশেষ শনিবার রাতেও আমার উপর হামলা চালানো হয়েছে।